শনিবার  ২২শে মার্চ, ২০১৯ ইং  |  ৯ই চৈত্র, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ  |  ১৫ই রজব, ১৪৪০ হিজরী

গুলশান লেক পরিচ্ছন্নতা অভিযান শুরু

ডিএ: রাজধানীর গুলশান লেক দূষণমুক্ত করতে ১০দিনব্যাপী পরিচ্ছন্নতা অভিযান শুরু করেছে গুলশান সোসাইটি। রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে গুলশান সোসাইটির সম্পাদিত সমঝোতা চুক্তি অনুযায়ী শনিবার গুলশান লেকের নিকেতন এলাকা থেকে পরিচ্ছন্নতা অভিযান শুরু হয়। এ উপলক্ষে শনিবার সকালে শহীদ ডা. ফজলে রাব্বি পার্কে এক সমাবেশের আয়োজন করা হয়। এ ছাড়া গুলশান এভিনিউতে বিভিন্ন জনসচেতনতামূলক শ্লোগান সম্বলিত প্লাকার্ড নিয়ে মানববন্ধন করা হয়। সমাবেশে বক্তারা গুলশান লেক অবৈধ দখল, ময়লা বর্জ্য নিক্ষেপের প্রতিবাদ জানান। তারা লেকে সুয়ারেজ লাইন সংযোগের তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন এবং অবিলম্বে এসব সংযোগগুলো বন্ধ করে দেয়ার দাবি জানান। সমাবেশ শেষে লেকে পরিচ্ছন্নতা অভিযানের সূচনা হয়। গুলশান সোসাইটির সদস্য ছাড়াও গুলশানের বাসিন্দা এবং জুম বাংলাদেশের দুই শতাধিক স্বেচ্ছাসেবক লেকের পানিতে নেমে বর্জ্য, ময়লা অপসারণ অভিযানে অংশ নেন। এ সময় তারা লেকপাড়ে অবৈধ স্থাপনাও উচ্ছেদ করেন। গুলশান সোসাইটির প্রেসিডেন্ট শাখাওয়াত আবু খায়ের মোহাম্মদ সমাবেশে সভাপতির বক্তব্যে বলেন, পরিচ্ছন্নতা কার্য়ক্রমের পরে লেক স্থায়ীভাবে পরিস্কার রাখার দায়িত্ব গুলশানবাসীর। এলাকাবাসীকে আরও সচেতন হওয়ার পরামর্শ দেন তিনি। গুলশান সোসাইটির সেক্রেটারী জেনারেল ব্যারিস্টার শুক্লা সারওয়াত সিরাজ বলেন, সমস্যার ব্যাপারে শুধু অভিযোগে বিশ্বাসী নই, নিজেদের উদ্যোগে বিভিন্ন নাগরিক সমস্যা সমাধানে আগ্রহী গুলশান সোসাইটি। এরই অংশ হিসেবে গুলশান লেক রক্ষা করতে পরিচ্ছন্নতা অভিযান শুরু হলো। রাজউকের গুলশান বনানী বারিধারা লেক উন্নয়ন প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক( পিডি) আমিনুর রহমান সুমন বলেন, এই প্রথম আমাদের দেশে লেক ব্যবহারকারী এবং সরকার যুগপৎভাবে পরিবেশ রক্ষায় লেক সংরক্ষণে হাতে হাত রেখে কাজ করছে। পরিচ্ছন্নতা অভিযান কর্মসূচিতে উপস্থিত ছিলেন গুলশান সোসাইটি লেক কমিটির প্রধান ইভা রহমান, গুলশান সোসাইটির ভাইস প্রেসিডেন্ট প্রফেসর ড. এম এ হাসেম, ভাইস প্রেসিডেন্ট মাহিন খান প্রমুখ।

একটি প্রতি উত্তর ট্যাগ

আপনার ইমেল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না. প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রগুলি চিহ্নিত *

*

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com