লাইফস্টাইল: সময় ও সুযোগের অভাব বা মান-অভিমান যে কারণেই হোক না কেনো যদি অনেকক্ষণ পর খাবার খাওয়া হয় তবে তা শরীরে খারাপ প্রভাব ফেলে।
স্বাস্থ্যকর খাবার মাধ্যমে সে ক্ষতি খানিকটা পুষিয়ে নেওয়া যায়।
বাংলাদেশ গার্হস্থ্য অর্থনীতি কলেজের খাদ্য ও পুষ্টি বিজ্ঞান বিভাগের প্রধান ফারাহ মাসুদা বলেন, “একটানা অনেক্ষণ না খেয়ে থাকা ঠিক নয়। নির্দিষ্ট সময় পর পর হালকা কিছু খাবার খাওয়া উচিত। তবে কখনও যদি সময় সুযোগের অভাবে সময় মতো খাবার খাওয়া না হয় তাহলে যখন খাওয়া হবে তখন যেন স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়া হয় সেদিকে নজর রাখতে হবে।”
তিনি বলেন, “একটানা অনেকক্ষণ না খেলে শরীর খারাপ হতে পারে, পেট ব্যথা, মাথা ব্যথা, বমিবমি ভাব ও পেটে গ্যাস হওয়া ইত্যাদি সমস্যা দেখা দিতে পারে।”
“অনেকক্ষণ না খেলে পেট গরম হয়। তাই যখন খাবার খাওয়া হবে তখন পেট ঠা-া থাকে এমন খাবার খাওয়া উচিত। এক্ষেত্রে তরল এবং নরম খাবার খাওয়া যেমন- দই-চিড়া, সাগু, ইসপগুল ইত্যাদি খাওয়া শরীরের জন্য ভালো।” পরামর্শ দিলেন তিনি।
তিনি আরও বলেন “এছাড়াও কেউ চাইলে ভাত বা রুটিজাতীয় খাবার খেতে পারেন। তবে তার আগে বেশি পরিমাণে পানি পান করতে হবে। এইসময় খাবারে নিজের পছন্দ মতো দুএকটা মিষ্টিফল রাখতে পারেন যা শরীরে গ্লুকোজের মাত্রা ঠিক রাখবে। ভাত বা রুটি খাওয়ার সময় বেশি করে সবজি খেতে হবে। আমিষ হিসাবে ডিম বেছে নিতে পারেন। খাওয়ার পরে চা বা কফি না খাওয়াই ভালো। তবে কেউ যদি খেতে চান তাহলে অন্তত পক্ষে আধ ঘণ্টা অপেক্ষা করতে হবে।”
কোনোভাবেই দীর্ঘ বিরতির খাবার হিসেবে ভাজাপোড়া বা গ্রিল করা খাবার খাওয়া ঠিক নয়। এতে শরীর আরও বেশি খারাপ হয়। যতটা সম্ভব তরল ও ঠা-া খাবার খেতে হবে। ফল বা ফলের রস, দই, লাচ্ছি ইত্যাদি খাবার অনেকটাই স্বস্থি দেবে বলে পরাশর্শ দিলেন এই পুষ্টিবিদ।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে