ডিএ: সরকারের গৃহীত উন্নয়ন কাজে ‘আত্মতুষ্টিতে’ না ভোগার আহ্বান জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। তিনি বলেছেন, সরকার সূচিত কর্মকা-ের মাধ্যমে দেশে-বিদেশে যে স্বীকৃতি ও সম্মান বাংলাদেশ অর্জন করেছে, তার গর্বিত অংশীদার আমরা সবাই। তবে আত্মতুষ্টিতে ভোগার কোনো সুযোগ নেই। উন্নয়নের পথে আমাদের আরো অনেক দূর যেতে হবে। জাতীয় যুব দিবস উপলক্ষে বুধবার রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে এক অনুষ্ঠানে সরকারের এই উন্নয়ন কাজ এগিয়ে নিতে যুবকদের প্রতি আহ্বান জানান রাষ্ট্রপতি। সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ পরিহার করে মানবিক গুণাবলিতে সমৃদ্ধ হতে যুব সমাজের প্রতি আহ্বান জানিয়ে আবদুল হামিদ বলেন, আমাদের অমিত সম্ভাবনাময় যুবসমাজকে সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ পরিহার করে মানবিক গুণাবলি সম্পন্ন হতে হবে। স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে ধারণ করতে হবে। তোমাদের প্রতি আহ্বান- দেশ গড়ার মহানব্রত নিয়ে তোমরা তোমাদের অগ্রযাত্রাকে অব্যাহত রাখো। কাজের মানোন্নয়ন, দক্ষতা বৃদ্ধি, সততা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিতকরণ, তথ্যপ্রযুক্তির ব্যবহার, সম্পদের যথাযথ ব্যবহার এবং সর্বোপরি সরকারি সেবা প্রদানে মন্ত্রণালয়সহ যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরকে আরো উদ্ভাবনী হওয়ার আহ্বান জানাচ্ছি। রাষ্ট্রপতি বলেন, ছোট-বড় উদ্যোগ গ্রহণের মাধ্যমে এবং সমাজে ইতিবাচক অবদান রেখে মর্যাদাপূর্ণ জীবনযাপন করতে হবে। এর ফলে তোমাদের অবস্থার উন্নতির সাথে দেশও দারিদ্র্যমুক্ত হয়ে বিশ্ব দরবারে মাথা উঁচু করে দাঁড়াবে। দেশপ্রেম, মানবিকতা, নৈতিকতা এবং আধুনিক বিজ্ঞানমনস্ক শিক্ষা ও যুগোপযোগী প্রশিক্ষণ দিয়ে কর্মদক্ষতায় ঋদ্ধ করে যুবকদের গড়ে তুলতে সবাইকে সচেষ্ট থাকার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, এর মধ্য দিয়ে জাতীয় যুব দিবস পালন সার্থক হবে বলে আমি মনে করি। অনুষ্ঠানে যুব দিবস উপলক্ষে প্রশিক্ষিত যুবাদের মধ্য থেকে আত্মকর্মসংস্থান প্রকল্প স্থাপনে ‘দৃষ্টান্তমূলক অবদানের’ স্বীকৃতির জন্য ২৭ জনকে পুরস্কার দেন রাষ্ট্রপতি। যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী বীরেণ শিকদারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন, মন্ত্রণালয়ের উপমন্ত্রী আরিফ খান জয়, সংসদীয় কমিটির সভাপতি জাহিদ আহসান রাসেল, যুব ও ক্রীড়া সচিব আসাদুল ইসলাম, যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক আনোয়ালুল করিম প্রমুখ।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে