আন্তর্জাতিক ডেস্ক: ঘূর্ণিঝড় তিতলি গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে ভারতের অন্ধ্র প্রদেশ ও ওডিশা রাজ্যের সমুদ্র উপকূলে আছড়ে পড়েছে। তিতলি এখন যাচ্ছে পশ্চিমবঙ্গের সমুদ্র উপকূলের দিকে। আবহাওয়া দপ্তরের পূর্বাভাসে এ তথ্য জানা যায়। সকালে অন্ধ্র প্রদেশের শ্রীকাকুলাম ও ওডিশার গোপালপুরে তিতলি যখন আছড়ে পড়ে, তখন ঘণ্টায় এর গতিবেগ ছিল ১২৬ কিলোমিটার। এর মধ্যে ওডিশা সরকার উপকূলবর্তী এলাকার তিন লাখ মানুষকে নিরাপদ জায়গায় সরিয়ে নিয়েছে। ওডিশা সরকার গতকাল বৃহস্পতিবার ও আজ শুক্রবার দুই দিনের জন্য স্থানীয় সব স্কুল-কলেজ বন্ধ ঘোষণা করেছে। তিতলির কারণে ওডিশার গোপালপুর-বেরহামপুর সড়ক বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। ভেঙে পড়েছে বহু বাড়িঘর, গাছপালা, বিদ্যুতের খুঁটিও। সমুদ্র এখন উত্তাল। তিতলির প্রভাবে পশ্চিমবঙ্গে বৃষ্টি শুরু হয়েছে। বলা হয়েছে, তিতলি অভিমুখ ঘুরিয়ে পশ্চিমবঙ্গে ঢুকে পড়বে।
কলকাতার আলিপুর আবহাওয়া দপ্তর বলেছে, গতকাল তিতলি পশ্চিমবঙ্গে আছড়ে পড়বে। তিতলি ঝড়ের গতি কমে দাঁড়াতে পারে ঘন্টায় ৭০ থেকে ৮০ কিলোমিটার। এর মধ্যে অন্ধ্র প্রদেশ ও ওডিশা উপকূলের গোপালপুর থেকে অন্ধ্র প্রদেশের কলিঙ্গপত্তম অঞ্চলজুড়ে আছড়ে পড়েছে তিতলি। ওডিশার গঞ্জাম জেলায় তিতলি ভয়াবহ রূপ নিয়েছে।
তিতলির প্রভাবে গত বুধবার দুপুর থেকে পশ্চিমবঙ্গের উত্তর ও দক্ষিণ ২৪ পরগনা, হাওড়া, হুগলি, পূর্ব ও পশ্চিম মেদিনীপুর এবং ঝাড়গ্রামের বিভিন্ন এলাকায় বৃষ্টি শুরু হয়েছে। কলকাতা শহর ও পার্শ্ববর্তী এলাকায় ঝোড়ো বাতাস রয়েছে। সোমবার দুর্গাষষ্ঠী শুরু হওয়ার আগে ঘূর্ণিঝড় তিতলির আঘাত হানার খবরে কলকাতাসহ পশ্চিমবঙ্গের শারদীয় দুর্গাপূজা কমিটি উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছে। কারণ, এর মধ্যেই বেশির ভাগ পূজাম-প তৈরি হয়ে গেছে। আবহাওয়া দপ্তর পশ্চিমবঙ্গ থেকে সমুদ্রে মাছ ধরতে যাওয়া জেলেদের অবিলম্বে ফিরে আসার জন্য আহ্বান জানিয়েছে। পশ্চিমবঙ্গের দীঘা সমুদ্র উপকূলবর্তী এলাকায় সতর্কতা জারি করে মাইকে পর্যটকদের সমুদ্রের তীরে না যাওয়ার জন্য অনুরোধ জানানো হয়েছে। জেলেদেরও ফিরে আসার জন্য আহ্বান জানানো হয়েছে।
তিতলির প্রভাবে গতকাল মুর্শিদাবাদ, উত্তর ও দক্ষিণ দিনাজপুর, মালদহ, পূর্ব এবং পশ্চিম বর্ধমানে ভারী বৃষ্টি হওয়ার সম্ভাবনার কথা বলেছে আবহাওয়া দপ্তর। তিতলির প্রভাবে রোববার পর্যন্ত পশ্চিমবঙ্গে ভারী বৃষ্টি হওয়ার কথা বলেছে আবহাওয়া দপ্তর। আলীপুর আবহাওয়া দপ্তরের অধিকর্তা জি কে দাস বলেছেন, কলকাতাসহ উত্তর ও দক্ষিণ ২৪ পরগনাসহ কয়েকটি জেলায় বৃষ্টি শুরু হয়েছে। মৎস্যজীবীদেরও সমুদ্রে যেতে নিষেধ করা হয়েছে।
জি কে দাস বলেছেন, দীঘা ও রাজ্যের উপকূলবর্তী এলাকায় ভারী বৃষ্টির সঙ্গে ঝড়ো বাতাস বইবে। এর গতিবেগ ঘন্টায় ৫০ থেকে ৬০ কিলোমিটার বেগে বইবে। দীঘার সমুদ্র এখন উত্তাল হয়ে পড়েছে।
দক্ষিণ পূর্ব রেল ঘোষণা দিয়েছে, তিতলির কারণে কলকাতা থেকে অন্ধ্র প্রদেশ এবং ওডিশায় চলাচলকারী কয়েকটি ট্রেন বুধবার বাতিল করা হয়েছে। বেশ কয়েকটি ট্রেনের যাত্রাপথ ঘুরিয়ে দেওয়া হয়েছে।

 

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে