ডিএ: গাইবান্ধার সাঘাটা উপজেলায় আলোচিত আরিফ হত্যা মামলার রহস্য উদঘাটন করে আসামিদের গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় আরিফ হত্যা মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই সাহাদত হোসেন ও সাঘাটা থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মিজানুর রহমান দুই মাস চেষ্টার পর এ মামলার মূল আসামি আবদুল হাইকে গোবিন্দগঞ্জ থেকে এবং রাফি ও আলামিনকে বগুড়া জেলার ধুনট থেকে গ্রেফতার করে। গ্রেফতারকালে তাদের কাছ থেকে আরিফের মোবাইল ও হত্যার কাজে ব্যবহৃত গামছা উদ্ধার করা হয়। গতকাল বুধবার দুপুরে সাঘাটা থানার ওসি মোস্তাফিজার রহমান সংবাদ সম্মেলন মাধ্যমে এসব তথ্য জানান। এসময় বোনারপাড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ মোখলেছুর রহমান, সাঘাটা থানার ওসি (তদন্ত) মিজানুর রহমান ও এসআই সাহাদত হোসেনসহ বিভিন্ন মিডিয়ায় কর্মরত সাংবাদিকরা উপস্থিত ছিলেন। আরিফ হত্যা মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই সাহাদত হোসেন জানান, আসামি আবদুল হাই গত ২০ আগস্ট রাতে বোনারপাড়া রেলওয়ে স্টেশনের পরিত্যাক্ত রেল লাইনের ওপর ইলেক্ট্রনিক ব্যবসায়ী আরিফকে পরিকল্পিতভাবে মোবাইলে ফোনে করে ডেকে আনেন। এরপর আবদুল হাইয়ের ওপর দুই বন্ধু রাফি ও আল আমিন গামছা গলায় পেচিয়ে শ্বাসরোধ করে আরিফকে হত্যা করেন। ব্যবসায়ীক লেনদেনের জের ধরে আরিফকে হত্যা করে তার তিন বন্ধু।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে