স্পোর্টস: কেন উইলিয়ামসনের ডাবল সেঞ্চুরি, আরও অনেক মাইলফলক। নিল ওয়েগনার ও কলিন ডি গ্র্যান্ডহোমের ঝড়। দলীয় রানের রেকর্ড। রান জোয়ারে ভাসিয়ে দেওয়ার পর অবশেষে বাংলাদেশের বোলারদের মুক্তি দিল নিউ জিল্যান্ড। চূড়ায় উঠে ঘোষণা করল ইনিংস।
হ্যামিল্টন টেস্টের তৃতীয় দিনে ৬ উইকেটে ৭১৫ রান তুলে প্রথম ইনিংস ঘোষণা করেছে নিউ জিল্যান্ড। ইনিংস পরাজয় এড়াতে বাংলাদেশের প্রয়োজন ৪৮১ রান!
নিজেদের সুদীর্ঘ টেস্ট ইতিহাসে এই প্রথমবার ৭০০ রানের দেখা পেল কিউইরা। ২০১৪ সালে পাকিস্তানের বিপক্ষে ৬৯০ ছিল আগের সর্বোচ্চ।
বাংলাদেশের বিপক্ষে এটি দ্বিতীয় সর্বোচ্চ দলীয় স্কোর। ৭০০ করেছে আগে শ্রীলঙ্কা দুইবার, ২০১৪ সালে ৬ উইকেটে ৭৩০, গতবছর ৯ উইকেটে ৭১৩।
নিউ জিল্যান্ডের প্রথম ব্যাটসম্যান হিসেবে উইলিয়ামস পূর্ণ করেছেন ২০ টেস্ট সেঞ্চুরি। ইনিংসটিকে পরে রূপ দিয়েছেন দ্বিতীয় ডাবল সেঞ্চুরিতে। দ্বিতীয় সেশনে প্রথম ঘণ্টার শেষ বলে বাউন্ডারিতে ছুঁয়েছেন দুইশ। ইনিংসও ঘোষণা করে দেন তখনই।
ইনিংসটির পথে দেশের ইতিহাসের দ্রুততম ব্যাটসম্যান হিসেবে স্পর্শ করেছেন ৬ হাজার রান। ১২৬ ইনিংসে মাইলফলক ছুঁয়ে পেছনে ফেলেছেন রস টেইলের ১৪৫ ইনিংসের রেকর্ড।
তিনে নামা উইলিয়ামসনের আগে দ্বিতীয় দিনে সেঞ্চুরি করেছিলেন দুই ওপেনার জিত রাভাল ও টম ল্যাথাম।
নিউ জিল্যান্ডের প্রথম তিন ব্যাটসম্যানই সেঞ্চুরি করেছেন আগে একবারই, ২০০৩ সালে ভারতের বিপক্ষে মোহালিতে মার্ক রিচার্ডসন, লু ভিনসেন্ট ও স্কট স্টাইরাস।
উইলিয়ামসন দিন শুরু করেছিলেন ৯৩ রানে। সকালে সেঞ্চুরিতে পৌঁছে যান অনায়াসেই। আরেকপাশে ঝড় তুলেছেন নাইটওয়াচম্যান ওয়েগনার।
বাংলাদেশের পেসারদের একের পর এক শর্ট বল ওয়েগনার পাঠিয়েছেন বাউন্ডারিতে। ৩৫ বলে ক্যারিয়ার সেরা ৪৭ করে থেমেছেন ইবাদত হোসেনকে প্রথম টেস্ট উইকেট উপহার দিয়ে।
বিজে ওয়াটলিংকে নিয়ে এরপর ৯৬ রানের জুটি গড়েন উইলিয়ামসন। লাঞ্চের ঠিক আগে ওয়াটলিংকে ৩১ রানে থামিয়ে জুটি ভাঙেন মেহেদী হাসান মিরাজ।
লাঞ্চের পরও চলতে থাকে বাংলাদেশের বোলারদের তুলোধুনা করা। এবার উইলিয়ামসনের সঙ্গী ডি গ্র্যান্ডহোম। জুটিতে রান আসে ঝড়ের গতিতে।
২৫৭ বলে ২০০ করে যখন ইনিংস ছাড়লেন উইলিয়ামসন, ডি গ্র্যান্ডহোম অপরাজিত তখন ৫৩ বলে ৫ ছক্কায় ৭৬ করে। জুটির ১১০ রান এসেছে ৯১ বলেই।
রেকর্ডে উইলিয়ামসনদের উল্টো প্রান্তে ছিলেন মিরাজ। বাংলাদেশের হয়ে এক ইনিংসে সবচেয়ে বেশি রান গোনার রেকর্ড গড়েছেন ২৪৬ রান দিয়ে। রান দেওয়ার সেঞ্চুরি করেছেন বাংলাদেশের মূল তিন পেসারও।
সংক্ষিপ্ত স্কোর:
বাংলাদেশ ১ম ইনিংস: ২৩৪
নিউ জিল্যান্ড ১ম ইনিংস: ১৬৩ ওভারে ৭১৫/৬ (ডি.) (আগের দিন ৪৫১/৪) (উইলিয়ামসন ২০০*, ওয়েগনার ৪৭, ওয়াটলিং ৩১, ডি গ্র্যান্ডহোম ৭৬*; আবু জায়েদ ৩০-৫-১০৩-০, ইবাদত ২৭-৪-১০৭-১, খালেদ ৩০-৬-১৪৯-০, সৌম্য ২১-১-৬৮-২, মিরাজ ৪৯-২-২৪৬-২, মাহমুদউল্লাহ ১-০-৩-১, মুমিনুল ৫-০-৩২-০)।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে