ডিএ: যৌতুকের দাবিতে লক্ষ্মীপুরে সাবরিন আক্তার নামে এক গৃহবধুকে শ্বাসরোধ করে হত্যার অভিযোগ উঠেছে স্বামীসহ শশুর বাড়ির লোকজনের বিরুদ্ধে। গতকাল সোমবার দুপুুরে সদর উপজেলার শাকচর ইউনিয়নে এ ঘটনা ঘটে। নিহত সাবরিন আক্তার লক্ষ্মীপুর পৌর শহরের শাখারিপাড়া এলাকার হোসেন আহমেদের মেয়ে। নিহতের স্বামী রনি শাকচর ইউনিয়নের উত্তর টুমচর এলাকার বাসিন্দা। পুলিশ জানান, নিহতের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। ময়নাতদন্তের জন্য লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে।ঘটনার পর থেকেই স্বামীসহ শুশুর বাড়ির লোকজন পলাতক থাকায় বিষয়টি তদন্ত চলছে। এটি হত্যা কান্ড কিনা। পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, গত দুই মাস প্রেম করে শাকচর ইউনিয়নের উত্তর টুমচর এলাকার রনি বিয়ে করেন লক্ষ্মীপুর পৌর শহরের শাখারিপাড়া এলাকার হোসেন আহমেদের মেয়ে সাবরিন আক্তারকে। এরপর থেকেই যৌতুকের দাবিতে বিভিন্ন সময় সাবরিনকে মারধর করতেন স্বামী রনি। নিহত সাবরিনের বোন রুনা আক্তার ও চাচাত ভাই রিয়াজ অভিযোগ করে জানান,বিয়ের পর থেকেই রনি তাদের বোন মারধর করতো এবং যৌতুকের জন্য চাপাচাপি করতো। কয়েক বার এনিয়ে স্থানীয় ভাবে বিচার শালিশও হয়েছে তাদের ঘটনা নিয়ে এরপর গতকাল সোমবার ভোররাতে সাবরিনকে মারধর করে শ^াসরোধ করে হত্যা করে পালিয়ে যায় তার স্বামী রনি। সাবরিনের মৃতদেহ দেখে পুলিশকে খবর দেয় স্থানীয়রা। এ হত্যাকান্ডের বিচার দাবী করেন তারা। সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা লোকমান হোসেন জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে ঝুলন্ত অবস্থায় গৃহবধুর মৃতদেহটি উদ্ধার করা হয়। এরপর মৃতদেহটি ময়নাতদন্তের জন্য সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। নিহতের স্বামী ও শশুুর বাড়ীর লোকজন পলাতক থাকায় বিষয়টি তদন্ত চলছে। অভিযোগ ও ময়নাতদন্তের প্রতিবেদনের পর আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে