ডিএ: গাজীপুরের কোনাবাড়ী ও চন্দ্রায় দু’টি ফ্লাইওভার, কড্ডা ও বাইমাইলে দু’টি সেতু ও কালিয়াকৈরে একটি আন্ডারপাসসহ মোট পাঁচটি প্রকল্প উদ্বোধন করা হয়েছে। আজ শনিবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এসব উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধন করেন। সাসেক সড়ক সংযোগ প্রকল্পের আওতায় জয়দেবপুর-চন্দ্রা-টাঙ্গাইল-এলেঙ্গা মহাসড়কের গাজীপুর অংশে নির্মিত ফ্লাইওভার, সেতু ও আন্ডারপাসগুলো উদ্বোধন করা হয়। জেলা প্রশাসক ড. দেওয়ান মুহাম্মদ হুমায়ুন কবীর জানান, জয়দেবপুর-চন্দ্রা-টাঙ্গাইল-এলেঙ্গা মহাসড়ক দেশের উত্তরাঞ্চলের সঙ্গে সরাসরি যোগাযোগের একমাত্র করিডোর। ৪টি প্যাকেজের মাধ্যমে এ মহাসড়কটি উন্নয়নের জন্য ২০১৬ সালের জানুয়ারি মাস থেকে শুরু করা হয়। এরইমধ্যে প্রকল্পের আওতায় জয়দেবপুর-চন্দ্রা-টাঙ্গাইল-এলেঙ্গা মহাসড়কে অবস্থিত ২৩টি সেতু এবং দু’টি রেলওয়ে ওভারপাসের নির্মাণ কাজ সমাপ্ত হয়েছে। যা প্রধানমন্ত্রী ২০১৮ সালের ১৪ আগস্ট, ২০১৯ সালের ১৪ মার্চ, ২০১৯ সালের ১৬ মার্চ উদ্বোধন করেন। ২৩টি সেতু ও ২টি রেলওয়ে ওভারপাসসহ অধিকাংশ স্থানে চারলেন সড়ক যানবাহনের জন্য খুলে দেওয়ার ফলে বর্তমানে এ সড়ক দিয়ে উত্তরাঞ্চলের বিভিন্ন জেলায় যাতায়াত সহজ ও স্বস্তিদায়ক হয়েছে। সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের নির্বাহী প্রকৌশলী ও সাউথ এশিয়া সাবরিজিওনাল ইকোনমিক কো-অপারেশন (সাসেক) প্রজেক্টের এক নম্বর প্যাকেজের প্রকল্প ব্যবস্থাপক মো. হাফিজুর রহমান জানান, গতকাল শনিবার কোনাবাড়ী ও চন্দ্রা ফ্লাইওভার, কড্ডা-১ সেতু, বাইমাইল সেতু ও কালিয়াকৈর আন্ডারপাস উদ্বোধন করা হয়েছে। দু’টি ফ্লাইওভারই চার লেনের। এর মধ্যে কোনাবাড়ী ফ্লাইওভারটির দৈর্ঘ্য ১৬৪৫ মিটার। এর নির্মাণে ব্যয় হয়েছে ২১০ দশমিক ৫৩ কোটি টাকা। চন্দ্রা ফ্লাইওভারটির দৈর্ঘ্য ২৮৮ মিটার। যার নির্মাণ খরচ ৪৫ দশমিক ২১ কোটি টাকা। কড্ডা-১ সেতুর দৈর্ঘ্য ৭০ মিটার, ব্যয় হয়েছে ১৪ দশমিক ৫৮ কোটি টাকা। ১২১ মিটার দৈর্ঘ্যরে বাইমাইল সেতু নির্মাণ ব্যয় হয়েছে ১৭ দশমিক ৭৬ কোটি টাকা। এ ছাড়া ৪২০ মিটার দৈর্ঘ্যরে কালিয়াকৈর আন্ডারপাস নির্মাণে ব্যয় হয় ১২ দশমিক ৫৫ কোটি টাকা। গাজীপুরের জেলা প্রশাসক ড. দেওয়ান মুহাম্মদ হুমায়ূন কবীরের সঞ্চালনায় জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের ভাওয়াল নাট মন্দিরে আয়োজিত উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন- সংসদ সদস্য ইকবাল হোসেন সবুজ, গাজীপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র মো. জাহাঙ্গীর আলম, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আখতারউজ্জামান, গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার মো. আনোয়ার হোসেন, পুলিশ সুপার শামসুন্নাহার, গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট আজমত উল্লাহ খান, শ্রীপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট সামসুল আলম প্রধান, কাপাসিয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট আমানত হোসেন খান, গাজীপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি মো. মুজিবুর রহমান প্রমুখ।
ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে ২ ফ্লাইওভার-৪ আন্ডারপাস উদ্বোধন: ঈদে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে ঘরমুখো মানুষের বাড়ি ফেরা নির্বিঘœ করতে দু’টি ফ্লাইওভার ও চারটি আন্ডারপাস যানবাহন চলাচলের জন্য উন্মুক্ত করা হয়েছে। গতকাল শনিবার সকাল সাড়ে ১০টায় ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ ফ্লাইওভার ও আন্ডারপাসগুলো উদ্বোধন করেন। ফ্লাইওভার দু’টি হচ্ছে কোনাবাড়ি ও চন্দ্রা। আন্ডারপাসগুলো হলো কালিয়াকৈর, দেওহাটা, মির্জাপুর ও টাঙ্গাইল সদরের ঘারিন্দা। এরমধ্যে কোনাবড়ি ফ্লাইওভারের দৈর্ঘ্য এক হাজার ৬৪৫ মিটার, প্রস্থ ১৮ দশমিক এক মিটার, চন্দ্রা ফ্লাইওভারের দৈর্ঘ্য ২৮৮ মিটার, প্রস্থ ১৮ দশমিক ১ মিটার। টাঙ্গাইল জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে ভিডিও কনফারেন্স উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ও সংসদ সদস্য (এমপি) একাব্বর হোসেন, সংসদ সদস্য সংসদ সদস্য তানভীর হাসান ছোট মনি, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ফজলুর রহমান খান ফারুক, জেলা প্রশাসক মো. শহীদুল ইসলাম, পুলিশ সুপার সঞ্জিত কুমার রায়, টাঙ্গাইল প্রেসক্লাব সভাপতি জাফর আহমেদসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে