ডিএ: পুরান ঢাকার ওয়ারীর বনগ্রাম থেকে গত শুক্রবার সন্ধ্যায় নিখোঁজ হওয়া এক শিশুর লাশ উদ্ধার হয়েছে। তাকে ধর্ষণের পর শ্বাসরোধে হত্যা করা হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। শিশুটির নাম আফরিন সায়মা (৭)। তার বাবা আবদুস সালাম নবাবপুরের একজন ব্যবসায়ী। সালামের দুই ছেলে, দুই মেয়ের মধ্যে সবার ছোট সায়মা ওয়ারি সিলভারডেল স্কুলে নার্সারিতে পড়ত। পুলিশ বলছে, গত শুক্রবার রাতে একটি বহুতল ভবনের নয় তলার ফাঁকা ফ্ল্যাটে সায়মার লাশ পাওয়া যায়। ওই ভবনের ষষ্ঠ তলায় সায়মা তার পরিবারের সঙ্গে থাকত। ডিএমপির ওয়ারী বিভাগের অতিরিক্ত উপকমিশনার নুরুল আমিন বলেন, সন্ধ্যায় ঘর থেকে বেরিয়ে যাওয়ার সময় সায়মা তার মাকে বলেছিল, সে উপরে পাশের ফ্ল্যাটে যাচ্ছে একটু খেলতে। সে প্রতিদিন বিকালে নিচে ও ভবনের উপরের ফ্ল্যাটে অন্য বাচ্চাদের সঙ্গে খেলতে যেত। কিন্তু এদিন গিয়ে আর ফিরে আসেনি। অনেক খোঁজাখুঁজির পরে ৯ তলায় খালি ফ্ল্যাটের ভেতরে গলায় রশি দিয়ে মুখ বাঁধা রক্তাক্ত অবস্থায় মেয়েকে দেখতে পেয়ে পুলিশকে খবর দেয় পরিবার। আজ শনিবার সকালে নিহত শিশুটির ময়নাতদন্তের পর ঢাকা মেডিকেল কলেজের ফরেনসিক বিভাগের প্রধান ডা. সোহেল মাহমুদ জানান, বহুতল ভবনের ফাঁকা ফ্ল্যাটে হত্যাকান্ডের শিকার শিশুটিকে আগে ধর্ষণ করা হয়েছিল। তিনি বলেন, মেয়েটিকে ধর্ষণ করা হয় এবং এরপর শ্বাসরোধে হত্যা করা হয়েছে। এই শিশু ধর্ষণ ও হত্যার ঘটনায় ৬ জনকে থানায় এনে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে বলে জানান পুলিশ কর্মকর্তা নুরুল। তবে তাৎক্ষণিকভাবে কাউকে গ্রেফতার দেখানো হয়নি। তিনি বলেন আমরা জিজ্ঞাসাবাদ করছি, এ বিষয়ে একটি মামলাও প্রক্রিয়াধীন।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে